বেপরোয়া ভালোবাসা – পর্ব ২৩ (বোনাস পার্ট) রোমান্টিক গল্প | মোনা হোসাইন

  বেপরোয়া ভালোবাসা 

    Mona Hossain { 23 Bonus Part }


আদিবা দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতেই বাসার লেনলাইন আবার বেজে উঠল । আদিবার মা রাগী চোখে তাকালেন আদিবার বুঝতে বাকি রইল না ফোনটা তাকেই তুলতে হবে তাই এগিয়ে গিয়ে ফোন ধরল ।আদিত্য উপড়ে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সবটা দেখছে কিছু বলছে না। আদিবা ফোনে কথা বললেও সেদিকে তার মন নেই সে তাকিয়ে আছে আদির দিকে। আদিও আদিবার চোখে চোখ রেখে তাকিয়ে আছে। যেন প্রবল ঝড় শুরু হওয়ার আগে আকাশ ঘুম হয়ে আছে। আদিবা সবার সামনেই কথা বলে শেষ করল সাথে সাথে আদির ধর্য্যার বাঁধ ভাংগল নিজেকে আর সামলাতে পারলনা হনহন করে নিচে নেমে এসেই কোন কিছু না বলে আদিবার চুল টেনে ধরল ধরল। ব্যাথায় কুঁকিয়ে উঠল আদিবা। চোখ ভরে উঠল কিন্তু মুখে কিছু বলল না।

আদির বাবা এখানে উপস্থিত কিন্তু আদির মা আর আদিবার মা আছেন।আদিবার মা তাড়াতাড়ি এগিয়ে এসে বললেন,



-"কী করছিস বাবা? ছেড়ে দে এমন করিস না প্লিজ। আমি দেখছি কে ফোন করেছিল।

আদিত্য কাউকে পাত্তা না দিয়ে আরও শক্ত করে টেনে ধরে প্রশ্ন করল,

-" এত রাতে তোকে কে ফোন দেয়? কে ফোন করেছিল বল? এত নিচে নেমে গেছিস তুই.?

আদিত্য কথাটা শেষ করার আগেই আদিবা এক অসম্ভব কান্ড ঘটিয়ে বসল সে স্বজোরে আদির গালে থাপ্পড় বসিয়ে দিয়েছে। আদিবা কখনো এমন করতে পারে সেটা যেন সবার কল্পনার বাইরে ছিল, যে মেয়ে কোনদিন উঁচু গলায় কথা বলে না সে কিনা আজ থাপ্পড় বসিয়ে দিল তাও আদির গালে? কিভাবে সম্ভব? সবাই ভুত দেখার মত চমকালো আদির মা এগিয়ে আসতে আসতে বললেন

-"তোর এত বড় সাহস হয় কি করে আদিবা?তুই সবার সামনে আদির গায়ে হাত তুললি?

আদির মা কাছাকাছি আসতেই আদিবা চেঁচিয়ে উঠল,

-"খবরদার কাকিমনি আমার গায়ে হাত দিবে না। অনেক সহ্য করেছি আর না।এবার আমাকে মা*রলে খুব খারাপ হয়ে যাবে বলে দিলাম।তুমি আমার গুরুজন আমি সেটা ভুলে যেতে বাধ্য হব তোমরা আমাকে পেয়েছোটা কি শুনি..?

-"আদিবা তুই আমার সাথে এভাবে কথা বলতে পারছিস?

-"কাকিমনি আমার মত একটা মুর্খ,ঘরকোণে মেয়ের কাছ থেকে এর চেয়ে বেশি কী আশা করো তোমরা..? আমি যে অকথ্য ভাষায় গা*লিগালাজ করছি না এটাই তো অনেক। যাকে কোনদিন কোন সমাজে বের হতে দাও নি সে সামাজিক আচারন করবে সেটা ভাবো কি করে?সব সময় আমার সাথে অন্যায় করেছো আর সহ্য করব বলতে পারো? আমিও তো মানুষ..? এই ছয় বছরে তো অনেক মেরেছো আর কত? এবার আমায় মুক্তি দাও...
বলেই ডুকরে কেঁদে উঠল আদিবা..আদিবাকে এর আগে এমন আচারন করতে কখনো দেখে আদি তাই সে বেশ অবাক হয়েছে। কি বলবে বুঝতে পারছে না।সে আদিবার দিকে ঝুঁকে বলল

-"চুল ধরায় কি বেশিই ব্যাথা পেয়েছিস?

আদিবা অগ্নিঝড়া কন্ঠে জবাব দিল
-"না আমার শরীর লোহা দিয়ে তৈরি আমি কখনো ব্যাথা পাইনা।

-"ব্যাথা পাওয়ার মত করে ধরিনি তো...

-"আমি আপনার মত ছেলে নই তাই আমাকে কিভাবে ধরলে কতটা লাগে আপনি বুঝবেন না

-"আদিবা তুই আজ আমার সাথে কি কি করেছিস আশা করি ভুলে যাস নি আগের কথা বাদ দিলাম এখন তুই আবার আমাকে থাপ্পড় মেরেছিস এখন কার রাগ করার কথা?আমি কিছু বলছি না উলটে তুই রাগ দেখাচ্ছিস?

-"দেখান রাগ, মানা করেছে কে, রাগ দেখান,মারুন,
বাসা থেকে বের করে দিন এর বেশি আর কি করবেন?

-"যে ফোন করছিল সে কি বাইরে নিয়ে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে নাকি..?

-" মুখ সামলে কথা বলুন মিস্টার আদিত্য চোধুরী।

-"তারপর...?

-" আপনি আমার জীবনটা শেষ করে দিয়েছেন তারপরেও শান্তি হয় নি..? কি দোষ ছিল আমার সেদিন? সারারাত ধরে হাত পা বেঁধে ফেলে রেখেছিলেন তারপর আপনার পরিবার আপনাকে দুটো কথা শুনিয়েছিল বলে আপনি বাসা ছেড়ে চলে গেলেন আর তার দায় চাপল আমার ঘাড়ে কেন বলতে পারেন? এখন আপনি ফিরে আসলেন যারা আপনাকে শাস্তি দিয়েছিল সবার সাথে মিলেও গেলেন শুধু বাকি রইলাম আমি কিন্তু কেন? সেদিন আমি একটা বারের জন্যেও প্রশ্ন করি নি কেন এমন করলেন? প্রতিবাদ কিংবা অভিযোগ কিছুই করিনি তবুও সব দায় চাপল আমার ঘাড়ে...

-"তার মানে আমি কেন চলে গিয়েছিলাম সেটা তুই এতদিনেও বুঝিস নি...

-"এতদিন ভাবতাম আপনি হয়ত আমাকে ভালবাসেন তাই আমাকে এত শাসন করেন কিন্তু আজ ত প্রমাণ হয়ে গেল। তারপরেও কেন? আর আপনি যদি আমায় ভালও বেসে থাকেন তবুও বলছি এমন ভালবাসা যেন কোন মেয়ের ভাগ্যে না জুটে।এ কেমন ভালবাসা যেখানে সারারক্ষন ভয়ের মধ্যে থাকতে হয়? এমন ছেলেকে কেউ লাইফ পার্টনার হিসেবে চায় না। আসলে আপনি কখনো কাউকে ভালই বাসতে পারেন নি পারবেন ও না ..

-"একটু আগেই তো বলছিলি তুই নাকি আমায় ভালবাসিস...? এখন বলছিস আমার মত ছেলেকে চাস না?

-"হ্যা আমিই বলছি। একটু আগে যেটা বলেছিলাম আবেগে বলেছিলাম এখন যা বলছি বাস্তব বলছি।ধরুন আমি আপনাকে বিয়ে করলাম কি হবে তখন? আমি কোথাও গেলে আমাকে বাথরুমে আটকে রাখবেন। কেউ আমাকে ফোন করলে গায়ে হাত তুলতেও ভাব্বেন না। এমন জীবন গল্লে কাটানো যায় বাস্তবে সম্ভব না।

-"আদিবা তোর কি মনে হচ্ছে না তুই একটু বেশিই সাহস দেখাচ্ছিস আমি তো বুঝতে পারছি না তোকে এত সাহস কে যোগাচ্ছে?

-"খবরদার আমার দিকে আংগুল তুলবেন না আমার চরিত্র নিয়ে কথা বলার অধিকার আপনাদের কারোর নেই।

-"তাই নাকি?

-"হ্যা তাই আমাকে কিছুক্ষন আগে যে ফোন করেছিল সে আমার কেউ হয় না। সে আপনার বোনের প্রেমক। আমাকে ক্ষমা করো অরিন আপু আমি আর এই অপবাদ নিতে পারছি না। আমার পক্ষে আর চুপ থাকা সম্ভব না আজ আমাকে সবটা বলতে হবে।

আদি আদিবার কথায় পুরোই অবাক হল সে দৃঢ় গলায় প্রশ্ন করল

-"কি বললি আবার বল...

-"যা শুনেছেন তাই বলেছি ছয় বছর আগে আপনি আমাকে যে ছেলের সাথে দেখেছিলেন সেটা অরিন আপুর পছন্দের ছেলে ছিল। সেদিন আপুই আমাকে পাঠিয়েছিল তাকে বলার জন্য যে আপু তাকে ভালবাসে। প্রথমে আমি যেতে রাজি হইনি.কিন্তু আপু আমায় বলেছিল আমি তাদের বাসায় থাকি, খাই তাই এইটুকু প্রতিদান দেওয়া উচিত। সেই থেকে আজ পর্যন্ত প্রতিদান দিয়ে আসছি।
সেদিন যখন আপনি আমায় প্রশ্ন করেছিলেন ছেলেটা কে? আমি চাইলেই উত্তর দিতে পারতাম কিন্তু যার নুন খাই তার নিন্দা করতে পারিনি। পারিনি আপুকে বিপদে ফেলতে। কিন্তু আজ আপু সেই ছেলেটাকে ফেলে অন্য একজন কে বিয়ে করছে, বিয়ের ডেট ফিক্সড হয়েছে জেনে ছেলেটি ব্যাকুল হয়ে আমাকে ফোন করছে। মজার বিষয় কি বলুন তো আমি এতদিন যার জন্য এত কষ্ট সহ্য করলাম সেই আপু সবটা জেনেও কিছু বলছে না আজও বলছস না সেদিনো বলেনি।আপনারা সবাই আমাকে ব্যবহার করেছেন আর করবেনেই বা না কেন যাকে নিজের মা সহ্য করতে পারে না সেখানে আপনারা কেন করবেন..?
যাইহোক আমি খারাপ আমার চরিত্র খারাপ তাই আজ সবাইকে মুক্তি দিয়ে আমি চলে যাব।

বলেই উলটো ঘুরে হাঁটা দিল আদিবা সাথে সাথে তার মা বলল,
-"এত রাতে কোথায় যাচ্ছিস আদিবা..?

-"জাহান্নামে, এগিয়ে দিবে...?

আদিবার কথা শুনে আদিত্য যেন পাথর হয়ে গেছে কিছু বলতে পারছে না। কোন মুখেই বা বলবে? কী করে সে আদিবাকে আটকাবে আদিবা যে বলেছে সে আদির মত ছেলেকে চায় না।

আদিবা হনহন করে হেঁটে বাইরে চলে যাচ্ছিল পিছন থেকে আদিত্য বলল,

-"খবরদার আদিবা এই রাতে তুই বাইরে যাবি না।

-"আজ আমি চলে যাব ভাইয়া একমাত্র মৃত্যু ছাড়া এই সিধান্ত বদলাবে না। আপনি যদি আজ আমায় মারতে মারতে মেরে ফেলেন তবুও আমি এখানে আর একমুহূর্ত থাকব না।তাছাড়া আপনি যদি আমার পিছন পিছন আসেন আমাকে বাঁধা দিতে চান আজ ট্রেনের নিচে মাথা দিব আমি যে এক কথার মানুষ সেটা নিশ্চুই জানেন।

বলে বেরিয়ে গেল আদিবা আদি যেতে চেয়েছিল কিন্তু আদিবার শেষ কথাগুলো তাকে ভাবাল সত্যি সত্যি যদি কোন অঘটন ঘটয়ে বসে তাই গেল না।
পড়ুন  ভিলেন – এ্যাকশন লাভস্টোরি পর্ব 6 | Villain Bangla Golpo

পরবর্তী পর্বের জন্য ক্লিক করুন :>> চলবে

Writer :- মোনা হোসাইন

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search