বেপরোয়া ভালোবাসা – পর্ব ১৪ রোমান্টিক গল্প | মোনা হোসাইন

 বেপরোয়া ভালোবাসা 

Mona Hossain { Part 14}

কাক ডাকা ভোরে ঘুম ভাংগল আদিবার। চোখ মেলে তাকাতেই বুঝতে পারল আদি বেশ যত্ন নিয়ে তাকে আগলে রেখেছে। রাতে আদি জোর করে তাকে নিয়ে এসেছিল তারপর তার সাথে যা যা করেছে তার জন্য আদিবার এখন রাগ করার কথা, ভয়াবহ ধরনের রাগ কিন্তু তার রাগ হচ্ছে না, কেন হচ্ছে না ? নিজেকে বার কয়েক প্রশ্ন করেও উত্তর খুঁজে পেল না আদিবা বরং হুট করে লক্ষ্য করল তার কোন রকম খারাপ লাগা কাজ করছে না বরং আদির সাথে মিশে থাকতে ইচ্ছে করছে। আদিবা,আদির বুক থেকে মুখ তুলে তাকাল, ঘন পাঁপড়িতে ঢাকা চোখ দুটিতে যেন রাজ্যের ঘুম এসে জমা হয়েছে। গভীর ঘুমে আছন্ন আদিকে ভীষন শান্ত আর মায়াবী লাগছে। আদিবা আস্তে করে উঠে বসল,ইচ্ছে হল আদির সিল্কি চুলে একবার হাত বুলিয়ে দিতে কিন্তু সাহসের পরিপক্কতার অভাবে পেরে উঠল না। আদিবা বেশ কিছুক্ষন আদির দিকে তাকিয়ে রইল চোখ ফিরাতে ইচ্ছে হচ্ছে না। আদিকে সে জন্মলগ্ন থেকে দেখছে কই কখনো তো এত ভাল লাগে নি। সবসময় ভয় আর জড়তাই থাকত আজ হটাৎ মনে হচ্ছে এই মানুষটার প্রতি তার এক প্রকার আসক্তি আছে।

আদিবা আদির দিকেই তাকিয়ে আছে হটাৎ ঘড়িতে ঢং করে শব্দ হল আদিবার ধ্যান ভাংগল।
তাড়াতাড়ি এ ঘর থেকে বের হওয়া দরকার,কেউ তাকে এই রুমে দেখলে বিরাট কান্ড ঘটে যাবে। কিন্তু আদিবার যেতে ইচ্ছে করছে না। মনের বিরুদ্ধেই বিছানা ছাড়ে উঠল তারপর পায়ের কাছ থেকে গায়ের চাঁদর টেনে সযত্নে আদির গায়ে জড়িয়ে দিয়ে বেরিয়ে আসল।

সারাবাড়িতে পিনপতন নীরবতা কেউ উঠেনি। আদিবা নিজে থেকেই রান্না ঘরে গেল যদিও সে কখনো নিজে রান্না করে না।সে শুধু সব কাজ এগিয়ে দেয় রান্না করে আদির মা তবে আজ তার রান্না করতে ইচ্ছে করছে। ইচ্ছে করছে আদির পছন্দের সব রান্না করতে। যেমন ভাবনা তেমন কাজ আদিবা রান্না শুরু করে দিল । খিচুড়ি সাথে ইলিশ ভাজা আর গরুর মাংস সাথে ক্ষীর পায়েস।

ধীরে ধীরে বাড়ি সরগরম হয়ে উঠল সবাই জাগতে শুরু করেছে আদিবার রান্নাও প্রায় শেষ। সে টেবিলে খাবার দিতে দিতে জুইকে বলল সবাইকে ডেকে আনতে সবাই এসে টেবিলে বসল কিন্তু যার জন্য এত আয়োজন সেই আসছে না। আদির মাও এখনো আসেন নি। আদিবা এবার অস্থির হয়ে বলল

-"অরিন আপু যাও না ভাইয়া আর কাকিমনিকে একটু ডেকে নিয়ে এসো।

অরিন একটু হেসে বলল,
-"ঘটনা তো সুবিধের মনে হচ্ছে না কাহিনি কী হুম...?

-"উফ আপু তুমি যে কি বলো না কিসের আবার ঘটনা।

-"বুঝেছি বুঝেছি আর লজ্জা পেতে হবে না ফিসফিসিয়ে বলে অরিন আদিকে ডাকতে চলে গেল

আদি আর তার মা একসাথেই এসে টেবিলে বসল এত সকালে ঘুম থেকে তুলায় আদি বেশ রাগ করেছে সে অরিন কে ধমকাতে ধমকাতে নিয়ে এসেছে। আদি টেবিলে বসে রুক্ষ কন্ঠে বলল

-"আজকে ডেকেছো ডেকেছো তবে আর কোনদিন এত সকালে আমাকে আর ডাকবে না। আমি এত সকালে উঠি না যাইহোক কী রান্না হয়েছে তাড়াতাড়ি দাও খেয়ে ঘুমাম।

আদি বলতে দেরি হলেও আদিবার দিতে দেরি হয় নি সে প্লেট এগিয়ে দিল। প্লেটে চোখ রেখে আদির মুখে হাসি ফুটে উঠল সে আদিবার দিকে তাকিয়ে মিষ্টি হাসল তারপর খাওয়ায় মনযোগ দিল আদির মা খাবার সামনে পেয়ে বলে উঠলেন,

-"বাহ আদিবা তারমানে তোর মা তোকে সব বলে দিয়েছে..?

আদিবা অবাক হয়ে প্রশ্ন করল
-"কি কথা কাকিমনি..?

-"এই যে আজ তোকে পাত্রপক্ষ দেখতে আসবে। সে জন্যই রান্না করেছিস তাইনা?

কথাটা শুনে আদিবা যতটা না অবাক হয়েছে তার চেয়ে বেশি অবাক বোধহয় আদিত্য হয়েছে। কথাটা কানে পৌঁছার সাথে সাথেই আদি খাওয়া বন্ধ করে আদিবার দিকে হিংস্র চোখে তাকাল। আর কিছু না বলে খাবার ছেড়ে উঠে গেল। উপস্থিত সবাই বুঝতে পেরেছে আদি কেন রাগ করেছে কিন্তু তাতে কিছু যায় আসে না আদির মায়ের। তিনি যেকরেই হোক আদিবাকে এ বাসা থেকে বিদায় করতে চান।

আদিবা অসহায় চোখে আদির চলে যাওয়ার দিকে তাকিয়ে রইল আর বুঝার চেষ্টা করল এটাই তার জীবনের নিয়তি কিনা।কেন তার সাথে বার বার এমন হয়? ভাল কিছু করতে গিয়েও ফেঁসে যায়। আদি সবসময় তাকে ভুল বুঝে। আজও বুঝল অথচ রান্না সে আদির জন্য করেছিল বরপক্ষের জন্য না। একে একে সবাই খাওয়া শেষ করে চলে যেতে লাগল আদির মা আদিবার কাছে এগিয়ে এসে কড়া গলায় বললেন,

-"আদিবা কোন রকমের ন্যাকামি বা ঝামেলা করবি না কিছুক্ষন পর তোর ফুফির ছেলে তোকে দেখতে আসবে গতকাল পার্টিতে দেখে তোকে পছন্দ করেছে।

-"কিন্তু কাকিমনি..?

-"আর কত জ্বালাবি আমাদের এবার অন্তত মুক্তি দে...

আদিবা আর কিছু বলতে পারল না চুপ করে রইল। সে বিয়ে করতে চায় না কিন্তু কিছু বলার সাহসো তার নেই।

কিছুক্ষনের মধ্যেই পাত্রপক্ষ চলে আসল। আদিবা অনিচ্ছা সত্ত্বেও তাদের সামনে গিয়ে বসল। সব ঠিক ঠিকই আছে আদি এর মধ্যে একবারো নিচে আসেনি ঝামেলাও করেনি এমনকি আদিবাকেও নিজের ঘরে ডাকেনি।

তবে পুরো বাসায় একটা ঘুমট ভাব আদিবা চুপচাপ সাথে অন্যরাও কারন বাসার সবাই মোটামুটি আদির রাগ সম্পর্কে জানে আর সে যে আদিবাকে ভালবাসে এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই।

আদিবাকে শাড়ি পরিয়ে পাত্রপক্ষের সামনে বসানো হয়েছে। আদিবার মন খারাপ লাগছে, কেন লাগছে নিজেকে প্রশ্ন করতেই মন উত্তর দিল সে অন্য একজনকে ভালবাসে? এই বিয়ে করা তার পক্ষে সম্ভব না কিন্তু কাকে ভালবাসে? ভাইয়াকে..? এবার আর ভিতর থেকে উত্তর আসল না। আদিবার ভিতরে এক অস্থিরতা কাজ করছে।

-"আচ্ছা ভাইয়া কী আমায় ভালবাসে? যদি ভালইবাসবে তাহলে কেন নিচে আসছেনা?এসে কেন বলছে না তিনি আমায় ভালবাসেন আমায় বিয়ে করতে চান? তবে কি ভালবাসে না..? না না তা হতে পারে না ভাল না বাসলে রাতে আমার সাথে এমন করল কেন? ভাল না বাসলে কি কাউকে এত কাছে টানা যায়..? আমার সারা শরীরে এখনো ভাইয়ার দেওয়া চিহ্ন বিরাজ করছে...

আদিবা যখন এসব ভাবছিল তখন হটাৎ করেই ঝড়ের বেগে নিচে নেমে আসল আদি আর কাউকে কিছু না বলে পাত্রপক্ষের সামনে থেকে আদিবাকে টেনে নিয়ে বাইরের দিকে পা বাড়াল ব্যাপারটা এতই তাড়াতাড়ি ঘটল যে সবাই শুধু অবাক চোখে তাকিয়ে রইল কেউ কিছু বলার সুযোগ পেল না।

যদিও আদিবা এতক্ষন বাঁধা দেয়নি কিন্তু বাসায় বাইরে এসে তার টনক নড়ল প্রশ্ন করল,

-"ভাইয়া কী করছেন? আমাকে এভাবে কোথায় নিয়ে যাচ্ছেন?

-"জাহান্নামে কোন অসুবিধা..?

-"হাতটা ছাড়ুন ভাইয়া বাসার সবাই হয়ত খারাপ ভাবছে।

-"ভাবুক তুই কোন সাহসে শাড়ি পরেছিস সেটা বল..

-"কাল তো আপনিই বলছিলেন শাড়ি পরতে..

-"পরে অন্য ছেলেকে দেখাতে বলেছিলাম?

"" শাড়ি পড়লেও সমস্যা না পরলেও সমস্যা তাহলে আমি পরবটা কী?

""" তুই কিছুই পরবি না।

""" কিহ...😳😳

""" ঠিকি শুনেছিস তোর কোন জামা কাপড়েই পরার দরকার নেই।

-"আপনক এসব কী বলছেন।

-"আমি কখন কী বলি আর কী চাই সেটা আমি নিজেই জানি না বাদ দে এখন চল।

"কোথায় যাব..??

"গেলেই দেখতে পাবি..

কথা না বাড়িয়ে ভাইয়ার পিছন পিছন পোষা বিড়ালের মত মাথা নিচু করে হাঁটতে লাগলাম।ভাইয়া ড্রাইভ করছে আদিবা পাশের সীটে বসে আছে।

'"" ভাইয়া আমরা কোথায় যাচ্ছি..

ভাইয়া বাঁকা হাসি দিয়ে বলল,
-অনুমান কর দেখি,তবে ভাল কোন কাজে যাচ্ছিস না এ ব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে পারিস। খুব শখ না বিয়ে করার.?

""" ভ ভ ভাইয়ায়া আপনি এসব কি বলছেন...??

""" আবারো সেই একি ভুল আট বছরেও তোর শিক্ষা হয় নি? তবে চিন্তা করিস না এবার শিক্ষা হবে

"'' ভাইয়া আপনি আমায় ভুল বুঝছেন..

-" হুম ভুলেই বুঝেছিলাম তানাহলে আবার সুযোগ দেই।

-"ভাইয়া মাথা ঠান্ডা করুন তাছাড়া আপনি আমার সাথে এমন করতে পারেন না।

""" আমি সব পারি।

""" আমাকে মারার জন্য নিয়ে যাচ্ছেন তাই না? তবে একটা কথা কান খুলে শুনে নিন আমাকে মা*রলে আমি আর চুপ থাকব না বাসার সবাইকে সব বলে দিব। সেই সাথে রাতে আমার সাথে কি কি করেছেন সেটাও বলব।

""" বাসায় ফিরতে পারলে তো বলবি...

আদিবা এত করে বলার পরেও আদির কোন পরিবর্তন হল না সে একমনে ড্রাইভ করছে। হুট করেই আদিবার আট বছর আগের সেদিনের কথা মনে পড়ে গেল। সামন্য ভুলের জন্য সেদিন আদি তাকে হাত পা বেঁধে মেরেছিল তারপর সারারাত ছাদে ফেলে রেখেছিল আজও সেই রট টা ভুলতে পারেনি আদিবা আজকেও সেই ঘটনার বিপরীত হবে না আদিবা জানে আদি আজ তাকে খুব মা*রবে। আদিবা এবার ভয়ে কেঁদেই ফেলল

""" আ আ আ....

""" আজব ত কাঁদছিস কেন..??

""" তো কি করব আপনি আমায় মে*রে ফেলতে চাইছেন।

""" শুধু তো চেয়েছি মেরে ত ফেলি নি এখনো তাই আপাতর চুপচাপ বসে থাক যখন মারব তখন কাঁদিস।

দেখতে দেখতে গাড়িটা যেন কোন গুহার ভিতরে ঢুকে গেল। চোখ বুলিয়ে বুঝা গেল না এটা সত্যি কারের গুহা না চারদিকে মাথা উঁচু কাশ ফুলের গাছ সাড়ি হয়ে দাঁড়িয়ে আছে তার মাঝখানে সরু একটা রাস্তা কোন জনমানবের চিহ্ন নেই কারন ফুল গাছে কোন ফুল নেই কারন এটা কাশফুলের সিজন না। ফুলের সিজন হলে হয়ত দলে দলে লোকজন থাকত কিন্তু এখন নেই।

""" ভ ভ ভাইয়া....

""" আচ্ছা আদিবা তোকে যদি এই জংগলে মে*রে মাটি চাপা দিয়ে দেই কেমন হবে ব্যাপার টা...??

আদির কথা শুনে হাত পা ঠান্ডা হয়ে আসছে আদিবার। আদির কোন বিশ্বাস নেই ও যা খুশি করে ফেলতে পারে।

""" ভাইয়া বিশ্বাস করুন আমি এই বিয়ের ব্যাপারে কিছুই জানতাম না। কাকিমনি যা বলেছে শুধু সায় দিয়েছি।

""" সায় দিয়েছিস এটাই বা কম কিসে? তোকে বলেছিলাম না আমার পারমিশনের বাইরে এক পা যেতে পারবি না তাহলে এত সাহস হল কি করে অন্য ছেলের সামনে বউ সেজে বসিস?

""" আ আ আমার কথাটা একটু শোনোবেন প্লিজ

পড়ুন  ভিলেন - থ্রিলার প্রেমের গল্প পর্ব 48 | Romance Love Story
পরবর্তী পর্বের জন্য ক্লিক করুন :>> চলবে

Writer :- মোনা হোসাইন

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search