Cute Love Story Mamato Boner Bandhobi Jokhon Crush Part 2

মামাতো বোনের বান্ধুবি যখন ক্রাশ

Bitas pramanik –  ( Part 2 )

সজিব নাদিয়াকে নিয়ে গেল। আর আমি  মাটিতে হাঁটু গেড়ে বসে পড়লাম। চোখের পানিও আজ বাঁধ মানতেছে না।একটা সিগারেট ধরালাম আর ভাবতেসি সবাই শুধু  আমাকে ভুল বুঝে।

আপনারা কিছুই বুঝলেন না। তাই তো? তাহলে চলুন অতীতে।

অতীত,  

আজ ট্রেনে করে মামা বাড়ি যাচ্ছি ।  একাই যাচ্ছি। আম্মুতো একা যাইতেই দিচ্ছিলো না। আমি এইবার HSC পরীক্ষা দিলাম।আপনারাই বলেন আমি কি এখনও ছোটো আছি নাকি যে আমি একা একা মামার বাড়ি যাইতে পাড়বো না। মামা বাড়ি যাইতে এখনো ২ ঘন্টা সময় লাগবে। 

{ Mamato Boner Bandhobi Jokhon Crush Sad Love Story }

২ঘন্টা পর ট্রেন সোনাতলা স্টেশনে থামলো। আমি  যেই নামতে যাব। ঠিক সেই সময় পিছন থেকে কেউ একজন আমাকে ধাক্কা দিল।আমি স্টেশনে পরে গেলাম।পরে যাওয়ার সময় চোখটা বন্ধ করলাম। কিন্তু আমার মনে হচ্ছে যে আমি নরম কোন কিছুর উপর পড়ে গেছি।চোখ মেলে দেখি আমি একটা মেয়ের উপর পড়ে গেছি। 

মেয়েটা অবশ্য বোরখা পড়ে ছিল তাই তার শুধু চোখ গুলো দেখা যাচ্ছিলো। মেয়েটা চোখ গুলোর দিকে আমি একনাগাড়েই তাকিয়ে আছি। হঠাৎ  মেয়েটা দাঁড়িয়ে আমাকে খুব জোরে একটা থাপ্পর দিল। আর বললঃ

মেয়েটাঃওই লুচ্চা,বানরের ৬নাম্বার ডিম,সাপের ১০ নাম্বার বাচ্চা । মেয়ে দেখলেই গায়ে পড়তে মন চায়।তাই না??

মেয়েটার কোন কথাই যেন আমার কানে যাচ্ছে না। আমি তো শুধু মেয়েটাকে দেখেই যাচ্ছি।  পিছন থেকে একজন বয়স্ক লোক  মেয়েটাকে বললঃ

বয়স্ক লোকঃ মা, তুমি শুধু শুধু ছেলেটাকে বকা দিচ্ছ।ছেলেটা তো আর ইচ্ছা করে পড়ে যাইনি। পিছন থেকে কে জানি ধাক্কা দিসে আর তুমিও সেই সময়ই এই দিক দিয়া যাচ্ছিলা তাই তো তোমার উপর পড়ে গেছে।

 { bangla love story , Bangla Valobashar Golpo }

 

মেয়েটা আমাকে বললঃ সরি ভাইয়া। 

আমি সেই বয়স্ক লোকটা কে বললামঃ ধন্যবাদ দাদু। আপনি না থাকলে  তো আমি শেষ হয়ে যেতাম। 

লোকটার সাথে কথা বলেই পিছনে ঘুরে দেখি মেয়েটা আর নেই।পুরা স্টেশন খুজলাম কিন্তু আর খুঁজে পেলাম না। তাই একটা অটোরিকশা তে চড়ে মামা বাড়ি গেলাম। মামা বাড়ির সামনে অটোরিকশা থেকে নামতেই দেখি মামি আর পায়েল (মামতো বোন) দাঁড়িয়ে আছে। 

আমিঃ আসসালামু আলাইকুম। মামি কেমন আছেন?

মামিঃ ওয়ালাইকুম আসসালাম। আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি।

আমিঃ কেমন আছ?? (পায়েল কে বললাম)

পড়ুন  শেষ ঠিকানা তুমি – থ্রিলার প্রেমের গল্প পর্ব 6 | Love Story

পায়েলঃ আলহামদুলিল্লাহ ভালোই আছি। তুমি??  এতো দিন পর বোনের কথা মনে হলো? 

আমিঃ আমিও ভালো আছি। কি আর করবো বোন ও তো ভাইকে ভুলে গেছে।

মামিঃপায়েল বিতাস কে রুমে নিয়ে যা।

পায়েলঃ আচ্ছা আম্মু। 

রুমে এসে ফ্রেশ হয়ে দুপুরের খাবার খেলাম। এখন রুমে শুয়ে আছি।পায়েল রুমে এসে বললঃ

পায়েলঃভাইটু  কি কর? 

আমিঃ ওই তুমি আমাকে ভাইটু বলবা না।

পায়েলঃ কেন? 

আমিঃ ভাইটু বলে ডাকলে  ২ নাম্বার ২ নাম্বার মনে হয়।

পায়েলের সাথে আরো কিছুক্ষন আড্ডা দিলাম। ও আপনাদের কে তো একটা কথা এখনো বলা হয়নি। আর সেইটা হলো আমার নিজের কোন বোন নাই। তবে কিছু জন কে আমি নিজের বোনের চোখে দেখি। তাদের মধ্যে পায়েল একজন আর পায়েল আর আমি কিন্তু সমবয়সী এবং পায়েল আমার বেস্ট ফেন্ডস ও। যাই হোক এখন গল্পে আসি।পায়েলের সাথে আড্ডা দিতেই  বিকাল হয়ে গেল। 

আমিঃ ওই পায়েল। চলো না রাস্তা দিয়ে একটু হাঁটি।

পায়েলঃ আম্মু যাইতে দিবে না।

আমিঃ সেইটা তুমি আমার উপর ছেড়ে দাও। 

পায়েলঃ ওকে। 

আমি মামির কাছে গিয়ে বললাম

আমিঃ ও মামি কি কর ? 

মামিঃকাজ করতেছি। কিছু লাগবে ? 

আমিঃ আপনার মেয়েকে নিয়ে একটু হাঁটতে যাইতাম? 

মামিঃ যাও তবে সন্ধ্যার আগেই চলে আসবি। আর একটু সাবধানে থাকিস। এলাকা টা বেশি ভালো না।

আমিঃ হুম। 

আমি আর পায়েল রাস্তা দিয়ে হাঁটতেছি।

আমিঃ বড় আপু আসবে কবে? (আমার বড় মামাতো বোনের কথা জিজ্ঞেস করলাম)

পায়েলঃ কিছু দিনের মধ্যে আসবে।

আমিঃ ও আচ্ছা। 

( আসলে আমার বড় মামাতো বোন রাজশাহীতে  থাকে।) 

{ Bangla Emotional Love Story }

আমি আর পায়েল রাস্তা দিয়ে হাঁটতেছি আর গল্প করতেছি। আসলে পায়েল কথা বলতেসে আর আমি শুনতেছি। হঠাৎ আমার স্টেশনের সেই মেয়েটির কথা মনে পড়ে গেল। মেয়েটার চোখের মায়া আমি এখনো ভুলতে পারতেছি না। হঠাৎ পায়েল আমাকে ধাক্কা দিল। তাই আমি স্বাভাবিক হয়ে বললামঃ

আমিঃ কি হলো ধাক্কা দিলা কেন? 

পায়েলঃ কখন থেকে ডাকতেসি। কার কথা এতো চিন্তা করতেছ হুম?? 

আমিঃ একটা মেয়ের।

পায়েলঃ তাই নাকি! তা সেই ভাগ্যবতীর একটা ছবি দেখি??

আমিঃছবি নাই তো।

পায়েলঃ তাহলে নাম টা বল।

আমিঃ নামও জানি না।

পায়েলঃ তা সেই মেয়ের বাড়ি টা কই?  সেই টা তো নিশ্চয় জানেন।

পড়ুন  বেপরোয়া ভালোবাসা – পর্ব ২৬ রোমান্টিক গল্প | মোনা হোসাইন

আমিঃ না।জানি না।

পায়েলঃ আমাকে খুলে বলতো। 

তারপর আমি পায়েল কে ট্রেন থেকে নামার ঘটনা টা বললাম।

পায়েল তো আমার কথাটা শোনার সাথে সাথেই হাসতে লাগলো । 

আমিঃ আরে এখনে হাসার কি আছে? 

পায়েলঃ শেষ পর্যন্ত একটা মেয়ের থাপ্পড় খাইলা।

আমিঃহাসা বন্ধ করবা?  তবে যাই বল মেয়েটার চোখ গুলো খুব মায়াবী 

পায়েলঃ ১ম বার তোমার মুখে কোন মেয়ের প্রশংসা শুনতেছি।

Also Visit Other Parts Of This Emotional Love Stories

পায়েলের সাথে আর কিছুক্ষন হেঁটে বাড়ি আসলাম। সন্ধ্যায় নাস্তার পর আবার ২ ভাই বোন মিলে আড্ডা দিতে বসলাম। 

পায়েলঃ ভাই একটা কথা রাখবা ? 

আমিঃবলো।

পায়েলঃ কাল আমাদের এখানে মেলা শুরু হবে। আমাকে নিয়ে মেলায় ঘুরতে হবে।

আমিঃওকে। এর আগের বার এসে ঘুরতে গিয়ে যে ছবি তুলতে তা কি তোমার কাছে আছে? 

পায়েলঃ হুম।সব আছে।

আমিঃ দাও তো।

পায়েলঃ আমি দিতে পারবো না। এই নাও আমার ফোন। এখন নিজে নিয়ে নাও।

পায়েলের হাত থেকে ফোন টা নিয়ে  ছবি গুলো দেখতে লাগলাম। কিন্তু এ কি? এগুলো তো সেই ছবি না।এগুলো তো কিছু মেয়ের ছবি। 

আমিঃ এ গুলো কাদের ছবি? 

পায়েলঃ আমার বান্ধুবির ছবি। কেন ক্রাশ খাইছ নাকি? 

আমিঃ  আরে আমি তো সেই স্টেশনের মেয়েটার উপর ক্রাশ খাইছি। ওই মেয়ের কাছে তোমার বান্ধুরা কিছুই না।

পায়েলঃ ওই হারামি।  তুমি তো ওই মেয়ে কে দেখোই নি।শুধু চোখ দেখছ। তাহলে কি করে বুঝলা যে সে সুন্দরি।

আমিঃ যার চোখ এতো মায়াবী হতে পারে সে অবশ্যই সুন্দর হবেই।

পায়েলঃ আরে তুমি তো আমার সব বান্ধুবিকে দেখোই নি। দেখলে ১০০%  ক্রাশ খাবা । 

আমিঃতোমার বান্ধুবিদের উপর ক্রাশ খাবো তাও আবার আমি ? তোমার বান্ধুবি গুলো দেখতে শাকচুন্নির মতো সাথে তুমিও।

পায়েলঃ কি বললা? 

আমিঃ আরে আমি তো মজা করলাম।

পায়েলঃ আমার সাথে মজা করা না দেখাচ্ছি মজা। আবার আমাকে ও আমার বান্ধুবিকে শাকচুন্নিও বলেছো। আমার সাথে মজা করার জন্য তোমাকে শাস্তি দিবো।

আমিঃ শাস্তি । প্লিজ  আমাকে শাস্তি দিও না।তুমি না আমার লক্ষী বোন।

পায়েলঃ পাম দিয়ে লাভ নাই। শাস্তি তো তোমাকে পেতেই হবে।

আমিঃ কি শাস্তি? 

পায়েলঃ যখন দিব তখন বলব যে কি শাস্তি দিব। 

আমিঃ ওই আপু এইবারের মতো মাপ কর। 

পড়ুন  বেপরোয়া ভালোবাসা – পর্ব ৩২ রোমান্টিক গল্প | মোনা হোসাইন

পায়েলঃকোন লাভ নাই। শাস্তি তো তোমাকে আমি দিবই।

আমিঃ আচ্ছা

পায়েলঃ হুম। 

পিংকি আপুঃ কি নিয়ে এতো গল্প হচ্ছে?  আমিও একটু শুনি।(রুমে এসে বলল)

আমি আপুর কন্ঠটা শুনেই পিছনে ঘুরে দেখি আপু আমাদের পিছনে দাঁড়িয়ে আছে। আমি পায়েলের আগেই দৌড় দিয়ে গিয়ে আপু কে জড়িয়ে ধরি। আপু কে জড়িয়ে ধরে বললামঃ

আমিঃ আপু কেমন আছো? 

পিংকি আপুঃ আলহামদুলিল্লাহ ভালো। তুমি? 

আমিঃ আমিও আলহামদুলিল্লাহ ভালোই আছি। 

Also, Visit Another Story On Our Website


রাতে ৩ ভাই বোন মিলে আমার আড্ডা দিলাম। রাত ১ টার সময় ঘুমাইলাম। স্বপ্নের মধে আমি সেই বোরখাওয়ালি মেয়ে টা কেই দেখতে পাই। আমি যেই মেয়েটার মুখ থেকে  পদটা তুলতে যাব ঠিক সেই সময় আমার গায়ে কেউ পানি ডেলে দেয়। এতে আমার স্বপ্ন টা ভেঙ্গে যায়। ইসস…..সেই মেয়েটার মুখ টা আর দেখতে পারলাম না।তাকিয়ে দেখে পায়েল আমার সামনে দাঁড়িয়ে আছে। আর ওর হাতে পানির জগ।

পায়েলঃ Good Morning .

আমিঃ রাখতো তোমার Good Morning মামা বাড়ি এসেও কি শান্তিতে ঘুমাতে পারবো না।

পায়েলঃ সকাল ১০  টা বাজে। কারো মনে হয় আমাকে নিয়ে মেলায় যাওয়ার কথা ছিল।

আমিঃ হুম।

তারপর আমরা ২ জন নাস্তা করে ১১ টার সময় রউনা দিলাম। মেলার  স্থানের একটু আগেই দেখি পায়েলের কিছু বান্ধুবি পায়েলের জন্য দাঁড়িয়ে আছে। আমরাও গিয়ে ওদের সাথে যোগ দিলাম।

Click Here For Next Part চলবে…

Writer- বিতাস প্রামানিক

Mamato Boner Bandhobi Jokhon Crush Cute Love Story Part 2
Mamato Boner Bandhobi Jokhon Crush Cute Love Story Part 2

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search