মেঘলা আকাশের প্রেমজুড়ি – বাংলা থ্রিলার লাভস্টোরি পর্ব 1

Meghla Akasher Premjuri

Mona Hossain { Part 1} - Repost


রাত ১১ টা বেজে ৫৮ মিনিট, আগামীকাল মানে ১২ টার পর মেঘলার জন্মদিন আর তার প্রবল আত্মবিশ্বাস তাকে প্রথম উইশ টা আকাশেই করবে তাই অধীর আগ্রহে ফোনের স্ক্রিনে চোখ আটকে বসে আছে মেঘলা।

আকাশের নামের পাশের সবুজ বাতিটা জ্বলজ্বল করে প্রমাণ করছে সে এখনো অনলাইনেই আছে আকাশ সাধারনত এত রাত পর্যন্ত অনলাইনে থাকে না তারমানে কি আকাশ মেঘলাকে উইশ করার জন্যই অপেক্ষা করছে..?? ভেবেই মেঘলার মনে খুশির ঝলক বয়ে গেল।আকাশ মেঘলার মামাত ভাই যাকে মেঘলা পাগলের মত ভালবাসে তবে কোন অজানা কারনে প্রেম টা হয়ে ওঠে নি।

মেঘলা কয়েকবার নিজের মনের কথা আকাশের কাছে প্রকাশ করেছিল কিন্তু আকাশ পাত্তা দেয় নি তারপরেও মেঘালার পুরো বিশ্বাস আকাশ তাকে ভালবাসে কারন আকাশ মেঘলার অনেক কেয়ার করে সমস্ত বিপদ থেকে আগলে রাখে সম্পর্কে ভাই হওয়ায় হয়ত ভালবাসার কথা প্রকাশ করে না।

আকাশ তাকে ভালবাসুক আর নাই বাসুক অলিখিত নীতির মত অলিখিত নিয়মে সে আকাশের মালিকানা নিয়ে নিয়েছে অনেক আগেই।

আকাশ শুধুমাত্র মেঘলার এই সুত্রকে মূলমন্ত্র বানিয়ে নিজের জীবনের সমীকরন মিলিয়ে নিয়েছে মেঘলা। কোন কারনে তার এই অংক ভুল হবে না, হতে পারে না এটাই তার বিশ্বাস।

দেখতে দেখতে ঘড়ির কাঁটা ১২ টার ঘর পেরিয়ে গেল সাথে সাথে গোটা বিশের মত এসমেস এসে মেঘলার ফোনের নটিফিকেশন বক্সে হানা দিল কিন্তু সেসব চেক করার সময় বা ইচ্ছে কোনটাই মেঘলার নেই কারন মেঘলার চোখ এখনো আকাশের ইনবক্সে আটকে আছে দেখতে দেখতে আরও মিনিট দশেক কেটে গেল কিন্তু মেঘলার কাঙ্খিত সেই কল টা আর আসল না।

মেঘলাও হার মানার পাত্রী নয় অলিখিত সেই অধিকারবোধ থেকে মেঘলা নিজেই আকাশ কে ফোন দিল কিন্তু ফোনটা ওয়েটিং এ…

প্রায় ৩০ মিনিট ধরে চলল মেঘলার এই ফোন দেয়া নেয়া কিন্তু আকাশ এখনো ওয়েটিং এ।
আকাশের এই ফোনালাপ মেঘলার মন ভেঙে টুকরো টুকরো করে দিচ্ছে কিন্তু আকাশ তাতে মোটেও বিচলিত নয়। সে নিজ মনে কথা বলে চলেছে মেঘলা বারবার ফোন দিচ্ছে দেখেও আকাশ প্রতিবার মেঘলার ফোন টা কেটে দিয়ে কথা বলায় মত্ত হয়ে উঠেছে।

অনেকবার কেটে দেয়ার পর মেঘলা রেগে গিয়ে ফোন রেখে উঠে বসল। কিন্তু নিজের ফোনের ওয়াল পেপারে থাকা আকাশের হাসিমাখা ছবিতে চোখ পড়তেই মেঘলার রাগ নিমিষেই নিস্তেজ হয়ে গেল সে আবারও ফোন হাতে নিল কিন্তু এবার ফোন নয় এসমেস করল আকাশকে।

- কার সাথে কথা বলছিস...??

২,৩ মিনিট পর কল আসল কল টা, আকাশ করেছে দেখে মেঘলার মন খুশিতে নেচে উঠল। সাথে সাথে ঠিক করে নিল সকালে আকাশ কে নিয়ে কোথায় কোথায় ঘুরবে কি কি খাবে সব ট্রিট আকাশের কাছ থেকে এখনী চেয়ে নিবে। অধীর আগ্রহে মেঘলা ফোনটা রিসিভ করল।
কিন্তু ফোন ধরার সাথে সাথে একটা রুক্ষ কন্ঠ ভেসে এল আকাশ পাহাড় সমান বিরক্ত নিয়ে বলে উঠল,

পড়ুন  ভিলেন – থ্রিলার প্রেমের গল্প পর্ব 25 | Villain Bangla Story

আকাশঃ কি সমস্যা তোর? এতবার ফোন করছিলি কেন? বারবার কেটে দিয়েও শান্তি পাচ্ছিলাম না ব্যাপারটা কি?

- তুই দেখছিলি আমি ফোন করছি তাও ফোন টা কেটে দিলি..??
- তো তুই কোন দেশের প্রিন্সেস যে তোর ফোন কাটা যাবে না?

মেঘলা অভিমানী কন্ঠে প্রশ্ন করল,
- খুব ইম্পর্টেন্ট কেউ কল করেছিল বুঝি...??

আকাশ যথারীতি রাগী কন্ঠে জবাব দিল,
- হ্যা আমার ভার্সিটি ফ্রেন্ড নন্দিনী, এখন দেশের বাইরে থাকে অনেক দিন পর ফোন করেছিল। বাই দ্যা ওয়ে আমি কার সাথে কথা বলছিলাম বা বলব তার কয়ফত তোকে দিতে হবে নাকি?

- কয়ফত চাইব কেন আমি তো এমনি জিজ্ঞেস করছিলাম

- জানিস মেঘলা সবাই এমনি এমনি বলে না, তুই আসলেই একটা ঝামেলা এতদিন পর মেয়েটা ফোন দিয়েছিল তোর যন্ত্রনায় ভালভাবে কথাও বলতে পারলাম না।

মেঘলা রাগে তেতে উঠে জবাব দিল,
-তো আমার সাথে কথা বলার পর আবার ফোন দিলেই ত হয়...

আকাশ তাছিল্যের হাসি দিয়ে জবাব দিল,
- সবাই কি তোর মত ফালতু নাকি যে যখন ফোন দিব তখনী ফ্রি থাকবে...??

- বাজে কথা বলবি না আমি মোটেও ফালতু না আমিও দরকারেই ফোন দিয়েছিলাম।

- কিসের সাথে কিসের তুলনা করিস বুঝি না... কোথায় তুই আর কোথায় নন্দীনি? জানিস ফার্স্ট ক্লাস পেয়ে স্কলারশীপে বিদেশে গিয়েছে অসম্ভব ট্যালেন্টেড মেয়ে সারাক্ষন বইয়ে ডুবে থাকে।
কথা বলার মত এত সময় ওর নেই আর তুই ত সবসময়েই ফ্রি থাকিস। ফোন দিলে তুই বাথরুমে থাকলেও কথা বলা শুরু করে দিবি।

কথাটা মেঘলার খুব খারাপ লাগলেও প্রকাশ করল না আসলে সে আকাশকে খুবি পছন্দ করে তাই সে যত ব্যস্তই থাকুক আকাশ ফোন দিলে কথা বলার চেষ্টা করে এমন কি ক্লাসের মাঝখানে ফোন দিলেও সে রিসিভ করে স্যারের কাছে বকা খেলেও ফোন ধরতে ভুল করে না। তার কাছে আকাশের চেয়ে ইম্পোর্টেন্ট আর কিছু নেই হতেই পারে না। সবার আগে আকাশ তারপর অন্য কিছু তাই রাগের সাথে ভালবাসা মিশিয়ে জবাব দিল,

- সেটা তো তোর সাথে কথা বলতে ভাল লাগে তাই...

মেঘলার কথা শেষ করার আগেই আকাশ মেঘলাকে থামিয়ে দিয়ে বলল,
- হয়েছে রাখ তোর আজাইরা পেচাল। এসব বাদ দিয়ে বল ফোন দিয়েছিলি কেন?

আকাশের এমন অপমানের পর মেঘলা কি বলবে বুঝতে পারছেনা চোখ ফেঁটে কান্না পাচ্ছে পেটের ভিতর কথা সাজানো থাকলেও মুখে আসছে না কথাগুলো গলায় এসে কেমন যেন দলা পাকিয়ে আটকে যাচ্ছে কথা বলতে গিয়ে বারম্বার ঠোঁট ২টি কেঁপে কেঁপে উঠছে এ যেন অদ্ভুত এক অনুভুতি ভালবাসার মানুষকে আজ হটাৎ করেই যেন অপরিচিত মনে হচ্ছে মেঘলার..

- কিরে জবাব দিচ্ছিস না কেন? কোন কিছু বলার না থাকলে ফোন টা রাখতে পারি বলে আকাশ মেঘলাকে উত্তর দেয়ার সুযোগ না দিয়েই ফোন টা কেটে দিল।

ফোন টা কেটে দেয়ায় মেঘলার যথেষ্ট খারাপ লাগল কিন্তু অদৃশ্য কোন টানে আকাশকে ক্ষমা করে দিয়ে মেঘলা আবার ফোন দিল কারন সে চায় আকাশ জানুক আজ তার জন্মদিন। কিন্তু এবারেও ফোন টা ব্যাস্ত পেল…….

- নন্দনী কি এতটাই ইম্পর্টেন্ট আর আমি কি এতটাই সস্তা? যার জন্য আমার সাথে কথা বলার কোন আগ্রহই খুঁজে পাচ্ছে না ভাইয়া...?? কি করব আবার কল দিব? কল দেয়া টা কি উচিত হবে?
হ্যা অবশ্যই হবে জন্মদিন তো আর প্রতিদিন আসবে না রাগ করে এই দিন টা নষ্ট করতে চাই না ও যদি জানে আজ আমার জন্মদিন নিশ্চুই আমার সাথে কথা বলবে।

পড়ুন  রাগী স্যার যখন ডেভিল হাসবেন্ড পর্ব 2 | Valobashar Golpo

মেঘলা আবারো ফোন দিল কিন্তু আবারও ব্যাস্ত পেল। তাই মেঘলা সিধান্ত নিল ম্যাসেঞ্জারে এসমেস দিয়ে জানিয়ে দিবে আজ তার জন্মদিন আর তারপর আকাশের সাথে রাগ করার অভিনয় করবে আর আকাশ তার রাগ ভাঙ্গাবে মেঘলা সেটা উপভোগ করবে…...

যেমন ভাবনা তেমন কাজ, মেঘলা ম্যাজেঞ্জার টা অন করল কিন্তু তাতে যা দেখল তাতে কষ্ট টা হাজার গুণ বেড়ে গেল। বুকের বা পাশে অসহ্যকর চিনচিন ব্যাথা শুরু হল কারন আকাশ মেঘলাকে ফেসবুকে ব্লক করেছে। সে চাইলেও আকাশকে আর এসমেস করতে পারবে না। ফোনে কয়েকবার ট্রাই করে বুঝতে পারল আকাশ এবার ফোনে কথা বলছে না বরং মেঘলার নাম্বার টা ব্লেকলিস্টে রেখে দিয়েছে। কারন ফোন টা এখন ওয়েটিং এ নয় বরং ইউজার বিজি দেখাচ্ছে।

ফোনটা পাশে রেখে দিয়ে হতাশ হয়ে হয়ে বসে পড়ল মেঘলা। চারপাশটা কেমন যেন অদ্ভুত রকমের ঘুমোট লাগছে,দমবন্ধ পরিবেশ,বাতাস টা যেন মুহুর্তেই বিষাক্ত হয়ে উঠেছে নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে। ঘন ঘন নিঃশ্বাস নিয়ে নিজেকে কন্ট্রোল করার প্রচেষ্টা ব্যস্ত হয়ে উঠেছে মেঘলা কিন্তু বুকে জমে থাকা কষ্টের বোঝা টা যেন কিছুতেই হালকা হচ্ছে না ক্রমেই ভারী থেকে ভীষন রকমের ভারী হয়ে চেপে বসছে।

এই প্রথমবার মেঘলার মনে হচ্ছে বাবার পরিচয়ে না নিজের পরিচয়ে নিজের পায়ে দাঁড়ানো উচিত। পড়াশোনা করা উচিত। ভালবাসার জন্য এত টা বেহায়া হওয়া উচিত না। এতদিন যা করেছে ভুল করেছে। অতিরিক্ত ভালবাসার ফলে তার ভালবাসা আজ সস্তা হয়ে গিয়েছে।

চোখ বন্ধ করে বসে মাথা নিচু করে দীর্ঘ শ্বাস ফেলল মেঘলা। চোখ বন্ধ করার সাথে সাথে অভিমানী চোখে ভেসে উঠল আকাশের মুখখানী কতই না কেয়ার করত সে মেঘলাকে। আজ সেই আকাশেই তাকে এত অপমান করল। এক মুহূর্তেই কত সহজে পর করে দিল তাকে। কথাগুলো মনে পড়তেই অনেক চেষ্টায় চেপে রাখা আশ্রুজলের কাছে হেরে গেল মেঘলা।

বন্ধ চোখের কোণ বেয়ে নোলা জল গড়িয়ে ফোনের স্ক্রিনে ফোঁটায় ফোঁটায় জমে নিজেদের অস্তিত্ব স্পষ্ট করে তুলল। আধো আলো আধো অন্ধকার রুমে ফোনের উপড় জমে থাকা অশ্রুকণা গুলো মুক্তোর মত ঝিক ঝিক করে উঠল।

ভীষন অভিমানে চোখের কোণ বেয়ে ঝরে পড়া নোনাজল ভীষন রকমের মুল্যবান হয়,যা মোক্তোর মতই আভা ছড়ায় যার আভায় নিঃশ্বাস ভারী হয়ে উঠে চারপাশের বাতাস বিষাক্ত হয়ে যায়। আর সেই নোনাজলের মুল্য কেবল তার অস্বীকৃতি মালিকেই জানে অন্য কারোর পক্ষে তার মূল্য নির্ধারন করা সম্ভব নয়।

মেঘলা খেয়াল করল ঘরের একপাশের জানালাটা লাগানো হয় নি সেদিক দিয়েই চাঁদের আলো ঘরে আঁচড়ে পড়ছে। চাঁদের আলোতে আশ্রুকণা মুক্তোর ন্যায় চিক চিক করছে। জানালার পর্দাটা বাতাসে দুলছে চাঁদের আলোয় বারান্দাটাকে অসম্ভব মায়াবী লাগছে মেঘলা নিজের অজান্তেই ফোন ছেড়ে বারান্দায় গিয়ে দাঁড়াল। ফোনে ঠুং ঠাং আওয়াজ ভেসে আসছে ফ্রেন্ডরা সবাই তাকে উইশ করছে কিন্তু সেসব দেখার ইচ্ছে করছে না মেঘলা সে মাথার উপড়ের বিশাল আকাশটার দিকে তাকিয়ে আছে,

পড়ুন  Love Never Ended Sad Love Story Bangla Part 16 | Love Story

রাতের বিশাল আকাশটায় আজ তারার মেলা বসেছে ছোটবড় হরেক রকমের তারার মেলা...
বর্ষাকালে যে মেঘকে আকাশের বুকে মুকুটের ন্যায় লাগত আজ সেই টুকুরো মেঘটাকে আকাশের কোণে বড্ড বেমানান লাগছে। এই ঝলমলে আকাশে মেঘের অস্বিত্বটা আকাশের সুন্দর্য্য নষ্ট বই আর কিছু করছে না। আকাশ হয়ত চায় মেঘের হাত থেকে মুক্তি পেতে।
মেঘলার ইচ্ছে করছে নিজের হাতে মেঘটাকে আকাশের বুক থেকে উপড়ে ফেলে দিতে। কিন্তু তা সম্ভব নয় মেঘলা পিটপিট করে আকাশের দিকে তাকিয়ে আছে।

তখনী ফোনের শব্দে মেঘলার ঘোর কাটল। নির্বিক ভংগিতে গিয়ে ফোন হাতে নিয়ে চোখের জল মুছে কল রিসিভ করল মেঘলা। ফোন টা তার মা করেছে। মেঘলা আকাশের জন্যই নিজের বাসা ছেড়ে এত দূরে এসে হোস্টেলে থেকে পড়াশোনা করে। আকাশের বাসা থেকে কিছুটা দূরে হোস্টেলে থাকে মেঘলা আর তার বাবা মা অন্য শহরে।

মেঘলা এখানে থাকে তাতে তার মা বাবার আপত্তি নেই কিন্তু আজ মেঘলার জন্মদিন আর বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে হয়েও আজো বাসায় যায় নি তাই তার মা বাবা রাগ করে এতক্ষন ফোন দেয় নি। আসলে মেঘলা এখানে আকাশের সাথে দিন টা কাটাতে চেয়েছিল তাই যায় নি।
মেঘলা ফোন তুলল,

-হ্যালো...
- হ্যাপি বার্ডে সোনা...

-ফোন করার কি দরকার ছিল মাম্মাম একটু পর ত সকাল হয়েই যেত তখন না হয় করতে।
- তোকে উইশ না করে আমাদের ঘুম হবে বল? কতবার বল্লাম আসতে তুই কিছুতেই রাজি হলি না। তাই তো রাগে ফোন দেই নি

-মাম্মাম.....
- কি হয়েছে মেঘলা তোর কন্ঠটা এমন ভারী লাগছে কেন...??
- তেমন কিছু না মা আসলে ঘুম পাচ্ছে এখন রাখি...??
সকালে কথা বলব।

- কি হয়েছে মেঘ.....যা কেটে দিল...?? এই শোনছো মেঘলা মনে হয় আমাদের সাথে রাগ করেছে।

মেঘলার বাবাঃ তাই তো দেখছি আমার সাথে কথা না বলেই কেটে দিল...??

- এই শোনো না একটা কাজ করলে কেমন হয় আমরা যদি ওকে সারপ্রাইজ দেই?
- কেমন সারপ্রাইজ?

-..........

- আইডিয়াটা মন্দ না যদিও তোমার ভাইদের বাসায় যাওয়ার ইচ্ছে আমার নেই কিন্তু মেয়ের জন্য এইটুকু সেক্রিফাইস তো করাই যায়।
.

Click Here For Next :চলবে

Writer :- Mona Hossain

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search