Emotional Sad Love Story Bangla Mr. Fuska wala Part 7 End

মি:ফুচকাওয়ালা

Amrin Talokder ( Part 7 )

পপি : আমিও দেখবো তাসফি তুমি কতটা দিন এই বারিতে থাকো। আমার রাম্তা থেকে সরাতে যদি তোমাকে গুম করতে হয় তাও আমি করতে দ্বিতীয় বার ভাববো না, আমি চাই এই বাড়ির সব টাকা সম্পত্তি। আমি হবো এই বাড়ির রাণি। আমার কথায় চলে এই বাড়ির সব নিয়ম কানুন।

তাসফি দরজার আড়াল থেকে সব শুনতে পায়। আর আমি তাকাতেই তাসফি চলে যায়, জানি না তাসফি কি না কি ভাবছে।

Emotional Sad Love Story Bangla

তার পর আর সারাটা দিন আমার সামনে আসে নাই। অনেক বার ডেকেছি কিন্তু কোন কাজ হয়নি। আমার থেকে দুরে দুরে থেকেছে। এমনেই রাগ উঠে রয়েছে তার উপর তাসফি দুরে দুরে আছে।
রাতে যখন কাছে আসলো.......

আমি: তাসফি তুমি কি কোন কারণে আমার উপর রেগে আছো?
তাসফি: …………

কোন কথা নাই মুখে, আমি কথা বলতেই কেঁদে দিল ।

আমিঃ কি সমস্যা তুমি আমাকে বলো, পপির ব্যবহারের জন্য রেগে আছো তুমি।

তাসফি:.........

আমি: তাসফি আমি কিন্তু রেগে যাচ্ছি, কি সমস্যা, আমি বলতে বলছি না।

তাসফি: তোমাদের নাকি সব কিছু হয়ে গেছে তো কেন আমাকে বিয়ে করলে।
আমি: সব কিছু মানে।কি হইছে, আর কার সাথে??

তাসফি: কার সাথে জানো না, পপির সাথে কি কি করেছো তুমি, এইসব তুমি করতে পারলা, আর একটা মেয়েকে এই ভাবে ঠকিয়ে কি লাভ পেয়েছো তুমি।
আমি: দেখ তাসফি তি কি বলছো আমি কিচ্ছু বুঝতে পারছি না। তুমি কি সব কিছু খুলে বলবে, পপি তোমাকে কি বলেছে।

তাসফি…………………
আমি: কি ও এই গুলা বলেছে??
তাসফি: হুমম....।

আমি আর তাসফিকে কিচ্ছু না বলে তাসফির হাত ধরে নিয়ে গেলাম সবার সামনে, আর সবার সামনে নিয়ে যাওয়ার পর সবাইকে ডাকলাম নিচে। সবাই আসার পর..

আমি: পপি তুই তাসফিকে কি বলেছিস??
পপি : কই আমি কি বলবো,

আমিঃ কিছুই বলিস নি??
পপি: না তো কেন তোমার বউ আমার নামে কি বলেছে বানিয়ে বানিয়ে, তুমি শুধু আমার, আর আমি সেটা করেই ছারবো। তোমার বউ যাই বলুক না কে তুমি তা বিশ্বাস করো না কেমন।

সবার সামনে নির্লজ্জের মতো কথা বলছে, আমারই মরে যেতে ইচ্ছে করছে। বারির সবার সামনে কিভাবে কথা বলছে একটু ও যদি কোন লাজ লজ্জা থাকতো।

Bangla Premer Golpo

আমি: পপি যা বলেছিস একবারই বলেছিস আর যেন কখনও তোর মুখ থেকে এই সব না শুনি, আর যদি শুনি তো আমার থেকে খারাপ আর এই পৃথিবীতে কেও হবে না।

এই বলে সেখান থেকে চলে আসি তাসফিকে নিয়ে, তার পর কয় দিন আর জ্বালাতন করে নি। কিন্তু কিছু দিন যেতেই আবার শুরু করেছে, তবে এবার আমাকে নয়।

তাসফি: আম্মু দাও আমি রান্না করবো আজ,
আম্মু : না মা তুই পারবি না.

তাসফি: আরে দেও না, তোমাকে আজ ছুটি দিলাম কেমন, তুমি রুমে যেয়ে রেস্ট করো, আমার রান্না মেষ হলে ডাকবো কেমন।
আম্মু : আচ্ছা, আর দেখে শুনে কাজ করিস কেমন,
তাসফি: সেগুলো আমাকে বলতে হবে না তুমি যাও তো।

তার পর আম্মু তার রুমে এসে বিশ্রাম করে আর ওই দিকে তাসফি একাই রান্না করে।

তাসফি রান্নার কথা না বলাটাই বেটার, কেননা তাসফির রান্নার হাতটা অনেক পাকা। যে একবার তার রান্না খাবে, সে কোন দিন ভুলবে না।অনেক অনেক ভালো লাগে তাসফির হাতের রান্না।

কিন্তু আজ খেতে বসে খাবার মুখে দিতেই জ্বালে মুখে দেওয়া যাচ্ছে না, আমি জানি আজ তাসফি রান্না করছে কিন্তু আমার মনে একটা হিনিস ডুকছে না, তাসফি তো জানে আমি বেশি জ্বাল পছন্দ করি না, তাহলে এতো জাবাল দেওয়ার লক্ষ্য কি??
অনেক কষ্টে পুরোটা খাবার কোন রকমে খেয়ে আমার রুমে চলে আসলাম, কি করবো সবার সামনে তো আর কিছু বলা যাবে না, আর সবারই একই অবস্থা, আর আজ প্রথম তাসফির রান্না এরকম হলো, তাই কেও কিচ্ছু বললো না।

সবার খাওয়ার শেষে তাসফি খাবার খেতে বসে দেখে তরকারিতে জ্বালে শেষ, কিন্তু কেও কিচ্ছু বললো না কেন আমাকে। আর আমরিন না এতো জ্বাল খেতে পারে না, আর ও এতো জ্বাল কি করে খেল,

তাসফি আর খাওয়ার টেবিলে এক মুহুর্ত না থেকে আমাদের রুমে এসে দেখে আমি বাথরুমে শাওয়ার ছেরে দারিয়ে আছি,

কি করবো এত্ত পরিমান জ্বাল যা আপনাদের বুঝাতে পারবো না। কিন্তু আমার বিম্বাস তাসফি নিজে থেকে এরকমটা কোন দিনও করবে না। কেও তো তাসপির পিছে লাগছে, না হলে এরকম কোন দিনও হবে না।

আমি বাথরুম থেকে বের হলে ……….

তাসফি: স্যরি আসলে আমি বুঝতে পারিনি এত্তটা জ্বাল হয়েছে। আমি তো মরিচের গুড়ো কমিয়ে দিছিলাম কিন্তু এরকম হবে জানতাম না,

আমি: আমি জানি আমার জানটা এরকম রান্না করতেই পারেনা, কেও তো তোমার পিছে লেগেছে।

তার পর আরো অনেক কথাই হয়।তার পর দিনও এরকম অবস্থা,
আজও রান্নার এই অবস্থা দেখে……

পপি: তাসফি তুমি এগুলো কি রান্না করো, এগুলো কি খাবার বানিয়েছো নাকি মুখেই তো তুলা যাচ্ছে না।

আজ সবাই তাসপিকে কিছুটা বকেছে, কেননা একদিন হইছে কিন্তু ভুলে হইছে বলে কিচ্ছু বলেনি, কিন্তু একটানা দুই দিন কেন হবে।

আমি: না কিছু একটা আমাকেই করতে হবে।আমার বিশ্বাস পপির কাজ এগুলো।
তাই আমি সিদ্ধান্ত নেই যে তাসফি যখন রান্না করবে তখন আমি দেখবো দুর থেকে কে এগুলো করে।

যেই ভাবা সেই কাজ তাসফি রান্নার মধ্যে বাহিরে যায়, আর এই সুযোগে পপি রান্না ঘরে ডুকে।

পপি রান্না ঘরে ঢুকেই লবণ আর মরিচের কৌটা নিয়ে তরকারিতে ঢেলে দেয়, কোন পরিমান ছারাই।
এখন বুঝতে পারলাম তাহলে আসল কাজটা কার,তাই তো বলি আমার স্ত্রীর এত্ত সুন্দর রান্না করা খাবারে কে জল ডেরে দেয়।

আমি ফোনটা বের করে কয়েকটা পিক তুলে নিয়ে সেখান থেকে এসে পরি। খাওয়ার সময় আজও তাসফিকে বকুনি খেতে হয়, আর আজ তাসফি সহ্য করতে না পেরে কান্না করে দেয়।
না আর নয় অনেক সহ্য করেছি, তার পর সবার সামনে সব প্রমাণ দিয়ে পপিকে এই বারি থেকে গাড় ধাক্ক দিয়ে বের করে দেই।

Bangla Valobashar Golpo

আমাদের জিবনের মধ্যে আর কোন বাধাই নেই। সবার নেজের ভুল বুঝতে পেরে তাসফির কাছে সবাই নিচু হয়ে গেছে। তার পর থেকে আর তাসফির কাজে কেও কখনও ভুল দরেনি,

ও এর মাঝে আপনাদের একটা খুশির সংবাদ দেই।তাসফির ৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

এখন তাসফিকে কোন কাজ করতে দেয় না আমার আম্মু। তাসফিকে অনেক যত্নে রাখে। তাসফি নিজে থেকে কাজ করতে চাইলেও কোন কাজই করতে দেয় না।

আজ তাসফির ডেলিভারি ডেট অনেক চিন্তা হচ্ছে, কি হবে যদি তাসপির কিছু হয়ে যায় কি নিয়ে বাঁচবো আমি।

তাসফিও আমার হাতটি অনেক শক্ত করে ধরে আছে, মনে হচ্ছে আমি হাতটি চেরে দিলেই হারিয়ে যাবো। হাজারো মান অভিমনের মধ্যে দুজন দুজনকে অনেক ভালোবাসি, তাই অনেক চিন্তু হচ্ছে।

তাসফিকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়, কিছুক্ষণ পর তাসফির অপারেশন থিয়েটারের বাহিরে লকল বাতিটা নিভে যায়।

আল্লাহ যানে কি রকম আছে তাসিফি, বিতর থেকে শুধু আমাদের বাচ্চার কান্না আসচ্ছে, জানি না পাগলটা কেমন আছে, অনেকটা ঘেমেও গেছি পাগলিটার কথা ভাবতে ভাবতে। ডাক্তার দরজা খুলে বের হয়ে আম্মুর হাতে বাচ্চাকে দিয়ে বলল...………

ডক্টর : আমরিন কে???

আমি: জ্বি আমি কেন কি হয়েছে, আমার পাগলটা কেমন আছে,ওর কিচু হয় নি তো,

ডক্টর : দেখুন অপারেশনের সময় অনেক রক্ত বের হয়েছে, মে আর হয়তো আর কিছুক্ষণ এই পৃথিবীতে থাকবে, আপনার সাথে আপনার স্ত্রী কথা বলতে চেয়েছে।

আমি: না ডক্টর এ হতে পারে না, আমার পাগলিকে বাঁচান যত টাকা রাগে দিব কিন্তু আমার পাগলিটাকে বাঁচান।
ডক্টর : দেখুন আমরা চেষ্ট করেছি কিন্তু পারিনি, তাই আপনি তার সাথে কথা বলুন প্লিজ।
আমি আর দেরি না করে তামফির কাছে চরে যাই,

আমিঃ ওই পাগলি একি হলো তোমায়।আমি কি নিয়ে বাঁচবো বলো, আমি যে তোমাকে ছারা বাঁচবো না। তুমি যদি চলে যাও আমাকেও সাথে করে নিয়ে যাও।

তাসফি: আমাকে কথা দাও এমন কোন কাজ করবে না।তুমি যদি কিছু করে ফেল, তাহলে আমাদের মেয়ের কি হবে বলো, আমাদের মেযের মাঝেই আমাকে খুঁজে পাবে, আমাদের মেয়েটাকে কোন দিন কষ্ট দিওনা কেমন,ওকে কখনও বুঝতে দিওনা আমার অভাবটা।তুমি কথা দাও আমার কথা রাখবে।
আমি: হুমম তাসফি ....।

আর কিচ্ছু বলতে পারেনি, তার আগেই আল্লাহর তাছে চলে যায় আমার পাগলিটা। কিছু কিছু গল্প সমাপ্ত হয়েও অসমাপ্ত থেকে যায়।আর আমরিন তার মেয়েকে কখনও তার মায়ের অভাব বুজতে দেয় নি। সে নিজেই তার বাবা মার দায়িত্ব পালন করেছে। আপনার সবাই দোয়া করবেন তাদের জন্য,

সমাপ্ত

Writer :- Amrin Talokder

Leave a Comment