মুখোশ সিজন ২ – রহস্যময় প্রেমের গল্প পর্ব ১ | মোনা হোসাইন

Mukhosh Season 2

Mona Hossain { Part 1 }


৫ বছর হয়ে গেছে রুহি মারা গেছে,
রুহির মৃত্যুর পর রাজ বেশ কয়েক বছর ডিপ্রেশন এ ছিল।এখন আস্তে আস্তে কিছুটা স্বাভাবিক হচ্ছে।কিন্তু সে এখন আর সেই শহরে থাকে না যেখানে সে আগে থাকত।কারন সেখানে রুহির অনেক স্মৃতি।
রাজকে সবাই বলেছিল দিয়াকে বিয়ে করতে কিন্তু সে করে নি।তার এক কথা রুহি ছাড়া আর কোন মেয়ে তার জীবনে আসবে না।

রাজের বাবার ইচ্ছা ছিল রাজ রাজনীতি করুক সে সেটাও করে নি।নিজের বিজনেস শুরু করেছে।
মাত্র এক বছরেই তার ইন্ডাস্ট্রির বেশ নাম ডাক হয়েছে।তার ইন্ডাস্ট্রিজ এর নাম রুহি ইনপুট আউটপুট অর্গানাইজেশন।

রাজের অফিসে আজ নতুন লোক নেওয়া হচ্ছে। রাজ নিজে কারোর ইন্টারভিউ নিচ্ছে না। কিন্তু মাঝে মাঝে মনিটরে ভিজিট করছে।
রাজ একটু কাজে ব্যাস্ত হয়ে গেছিল তাই কয়েকটা ইন্টার ভিউ দেখতে পারে নি।
হঠাৎ রাজের স্ক্রিনে চোখ পড়ল।তাতে রাজ যা দেখল তাতে তার চোখ কপালে উঠে গেল সে অবাক হয়ে একটা মেয়েকে দেখছে।তার অফিসে চাকরির জন্য একটা অস্মভব স্মার্ট মেয়ে এপ্লাই করেছে এবং সে ইন্টারভিউ দিয়েছে।মেয়েটা দেখতে যেমন সুন্দরী তেমনি স্মার্ট।মেয়েটার চাল চলন আভিজাত্যপূর্ণ।
দেখেই বোঝা যাচ্ছে এই দেশের কালচারে সে বড় হয় নি।
রাজ তার ইন্টাভিউতে মন দিল।

মেয়েটা আর ম্যানেজারের সব কথা রাজ শুনছে।

ম্যানেজারঃ জ্বি... আপনার সম্পর্কে কিছু বলুন।

আমি পিউ.....মিসেস পিউ আহমেদ।টোটালি হাউজওয়াইভ।এর আগে কোথাও জব করিনি।লন্ডন থেকে মার্কিটিং এর উপড় পিএসডি করেছি।

ম্যানেজারঃ সরি শুনতে পাই নি আবার একটু বলুন প্লিজ।
জ্বি অবশ্যই আমি পিউ আহমেদ। মিঃ আহমেদের স্ত্রী।ঘর সংসার করাই আমার একমাত্র কাজ কিন্তু স্বামির ইচ্ছাতেই দেশের বাইরে থেকে পিএসডি করেছি।

পিউ তার সার্টিফিকেট গুলি ম্যানেজার কে দিল তাতে স্পষ্ট করে লিখা আছে নাম পিউ বয়স ২৩ বছর। তার রেজাল্ট তাক লাগানোর মত।

ম্যানেজারঃ ম্যাডাম আপনি যতটা স্মার্ট আর আপনার যে রিজাল্ট তা নিয়ে আপনি রাষ্ট্রিয় যেকোনো উচ্চপদে অনায়াসে জব করতে পাড়েন।আপনাকে আমাদের অফিসে জিএম এর পদে হয়ত মানাবে কিন্তু আপনি যে পদে এপ্লাই করেছেন এই ছোট পদ আপনার সাথে কি করে মানাবে?

পড়ুন  বেপরোয়া ভালোবাসা পর্ব 6 | Bangla Romance love story

পিউ হেসে উত্তর দিল টাকাই কি জীবনে সব?আমি ক্ষমতা আর টাকা ২ টাকেই ঘৃনা করি। কার জীবনে লক্ষ কি সেটা কি তাকে দেখে বোঝা যায় বলুন?আমার হয়ত এটাই লক্ষ যে আমি এই অফিসে কাজ করব।আর আমি সাধারন হয়েই থাকতে চাই কিন্তু এই সমাজে ঠিকে থাকতে স্মার্ট হওয়াটা খুব জরুরি। তাই এত স্মার্টনেস।তাই আমাকে এই চাকরিটা দিলে খুশি হব।

ম্যানেজারঃ আমি স্যার কে রিকুয়েষ্ট করব যেন তার পার্সনাল এসিস্ট্যান্ট এর পদ টা আপনাকে দেয়।
পিউ একটু হেসে উঠে দাঁড়িয়ে বলল আসি তাহলে আপনি আমাকে আর কিছু জিজ্ঞাস করবেন না সেটা বোঝেছি আর যাই প্রশ্ন করুন আমি উত্তর দিতে পাড়ব সেটা আপনিও বোঝেছেন নিশ্চুই তাই সময় নষ্ট করতে চাই না বলে সান গ্লাস টা পড়ে মেয়েটা বের হয়ে গেল।
অফিসের সবাই এক দৃষ্টিতে মেয়েটার দিকে তাকিয়ে আছে।

এদিকে এক মুহুর্তের জন্য রাজের মাথা কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছে।
কারন মেয়েটা পিউ নয় রুহি। রুহি নিজের স্টাইল আর পোশাক আশাক যতই চেঞ্জ করুক রাজ তাকে চিনতে পাড়বে। মেয়েটার নাম রুহি হোক বা পিউ তাতে রাজের কিছু যায় আসে না কিন্তু সে নিজেকে বিবাহিতা বলছে রাজের সমস্যা সেখানেই।

পরবর্তী পর্বের জন্য ক্লিক করুন :>> চলবে

Writer :- মোনা হোসাইন

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search