মুখোশ সিজন ২ – রহস্যময় প্রেমের গল্প পর্ব 2 | মোনা হোসাইন

Mukhosh

Mona Hossain { Part 2 }


ম্যানেজারঃ আমি স্যার কে রিকুয়েষ্ট করব যেন তার পার্সনাল এসিস্ট্যান্ট এর পদ টা আপনাকে দেয়।
পিউ একটু হেসে উঠে দাঁড়িয়ে বলল আসি তাহলে আপনি আমাকে আর কিছু জিজ্ঞাস করবেন না সেটা বোঝেছি আর যাই প্রশ্ন করুন আমি উত্তর দিতে পাড়ব সেটা আপনিও বোঝেছেন নিশ্চুই তাই সময় নষ্ট করতে চাই না বলে সান গ্লাস টা পড়ে মেয়েটা বের হয়ে গেল।

কিছুক্ষন পর ম্যানেজার রাজের রুমে এসে বলল স্যার কাকে কাকে সিলেক্ট করা হবে যদি বলে দিতেন...
রাজ তখনো রুহির চিন্তায় ডুবে আছে।
রাজ বিরক্তি নিয়ে উত্তর দিল যাকে খুশি করুন কিন্তু পিউ নামের মেয়েটাকে অবশ্যই কনফার্ম করুন আর বলুন কাল থেকেই জয়েন করতে। আর হ্যা ও এলেই এগ্রিমেন্টে সাইন নিয়ে নিবেন।

ম্যানেজারঃ কিসের এগ্রিমেন্ট স্যার?

রাজঃ যেমন টা আমাদের অফিসে এমপ্লই পার্মানেন্ট হলে ১ বছরের আগে যব ছাড়তে পাড়ে না সেই এগ্রিমেন্ট

ম্যানেজারঃ কিন্তু স্যার ৬ মাস কাজ করার আগে কেউ কি করে পার্মানেন্ট হতে পাড়ে?

রাজঃ আমি চাইলে আজ এই মুহুর্তে যে কেউ সিইও পর্যন্ত হতে পাড়ে আশা করছি বোঝতে পেড়েছেন?

ম্যানেজারঃ জ্বি স্যার.... তারমানে রাজ স্যার,পিউ ম্যাডামের এর উপড় ক্রাস খেয়েছেন এতদিন কত মেয়ে স্যারকে ফুসলিয়েছে কাজ হয় নি কিন্তু এই পিউ কথা না বলেই স্যার কে ক্রাস খাইয়ে দিল।আর ক্রাস তো খাওয়ার এই কথা এমন স্মার্ট মেয়ে আশে পাশে একটাও নেই।কিন্তু স্যার কি জানেন মেয়েটা বিবাহিতা.... (মনে মনে)

রাজঃ কি ভাবছেন?যান মেয়েটাকে ফোন দিন।কনফার্ম করে আমাকে জানান।

ম্যানেজারঃ জ্বি স্যার বলে চলে গেল।

রাজঃ এটা কি করে হতে পাড়ে? আমি নিজে রুহির কবর দেখে এসেছি এখন রুহি কি করে ফিরতে পাড়ে? এই রহস্যের কিনারা আমাকেই করতে হবে।আমার মন বলছে তুমিই রুহি।

ম্যানেজার পিউ কে ফোন দিয়ে কথা বলে নিল।
তারপর রাজকে জানিয়ে দিল পিউ সকালে আসবে।

এটা শুনার পর রাজের সময় যেন আর কাটছে না। তার ইচ্ছা করছে এখুনি যেন সকাল হয়ে যায়।দেখতে দেখতে সেদিন টা কেটে গেল।রাতে রাজের ঘুম ও হলনা।
,
,
,
,
পরদিন সকালে রাজ অফিসে গিয়ে পিউ এর জন্য অপেক্ষা করছে।ঘড়ির কাঁটায় যখন ঠিক ১০ টা তখনি পিউ অফিসে পা দিল।১ মিনিট আগেও না ১ মিনিট পড়েও না ঠিক ১০ টায়।

পড়ুন  বেপরোয়া ভালোবাসা পর্ব 5 | Bangla Romance love story

পিউ এসে ম্যানেজারের সাথে কথা বলে এগ্রিমেন্ট এ সাইন করে রাজের রুমে ঢুকল।

পিউঃ মে আই কাম ইন?

পিউ এর বলতে দেড়ি হলেও রাজ ইয়েস কাম ইন বলতে দেড়ি হলনা কারন সে তো এতক্ষন পিউ এর জন্যই অপেক্ষা করছিল।

পিউঃ হ্যালো স্যার আই এম মিসেস আহমেদ।

রাজঃ তাই বোঝি?তা নিজের কি কোন নাম নেই বোঝি মা বাবা দেয় নি? বলে রাজ পিউ এর কাছে এসে পিউ এর হাত ধরে ফেলল। রাজ আসলে পিউ এর হাতে চুড়িতে কাটা সেই গুলি আছে কিনা সেটা দেখার জন্যই হাত দেখতে চেয়েছিল।খারাপ কোন উদেশ্যে নয় সে শুধু নিশ্চিত হতে চেয়েছিল এই সত্যিই রুহি কিনা।

কিন্তু তার আগেই ঠাস.......!!!
পিউ স্বজোড়ে রাজের গালে একটা থাপ্পড় বসিয়ে দিয়ে বলল একটা কর্পোরেট অফিসের বস কি করে এত জঘন্য হতে পাড়ে? আচ্ছা আপনার রুচিবোধ না হয় বাদ দিলাম মেয়েদের কি করে সম্মান করতে হয় মা শিখায় নি বোঝি?
নেক্সট টাইম আমার সাথে অসভ্যতা করার আগে এই থাপ্পড় টার কথা মনে রাখবেন আশা করছি।
আর যেহেতু আমাকে অফিসে পার্মানেন্ট করেছেন তাই ১ বছরের আগে আমাকে এখান থেকে বিদায় করতে পাড়ছেন না অতএব আপনার জন্য এটাই ভাল হবে যে নিজের সম্মান নিজে রাখার চেস্টা করুন। আজ এখানে যা হল সেটা সবার সামনে হোক আপনি নিশ্চুই সেটা চাইবেন না তাই বোঝে শুনে কাজ করবেন।
আর হ্যা সব মেয়ে দুর্বল হয় না মাইন্ড ইট। একদমে কথা গুলি বলে পিউ রুম থেকে বের হয়ে গেল।

রাজ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে শুধু দেখছে কিছুই বলে নি। কি বা বলবে সেতো অবাকের চরম সীমায় অবস্থান করছে। এটা কি করে রুহি হতে পাড়ে? যে রুহি আমার মুখের উপড় একটা কথা কোনদিন বলে নি সে আমাকে থাপ্পড় মারবে? এটা অসম্ভব।

রাজকে পিউ এর জায়গায় অন্য কেউ থাপ্পড় মারলে রাজ হয়ত এতক্ষনে তাকে মেরেই ফেলতো কিন্তু এই থাপ্পড় খেয়ে রাজের খারাপ লাগছে না।

রাজঃ একবার রুহিকে দিয়া ভেবে অনেক অন্যায় করেছি আর না এবার নিশ্চিত না হয়ে কোন ভুল করব না।কিন্তু শুধু একবার প্রমান হোক তুমিই আমার রুহি,তারপর তোমাকে নিজের করে নিতে যা যা করতে হয় আমি করব।

পড়ুন  Bangla Heart Touching Sad Love Story Mr. Fuska Wala Part 2

পিউ সারাদিন নিজের দায়িত্ব ঠিক ভাবে পালন করল।কিন্তু রাজ তাতে খুশি নয়।কারন পিউ একবারো রাজের কাছে আসে নি তাই রাজ পিউকে রুহি প্রমান করতেও পারছে না।

রাজ এবার চিন্তা করছে কি করা যায়?
রাজের এর সাথে গেম খেল্লে হবে বেবি? তোমার ব্যবস্থা আমি করছি অপেক্ষা করো।

রাজঃ ম্যানেজার কে ডেকে বলল,পিউ মেয়েটা আমার পার্সনাল এসিস্ট্যান্ট করে দিন।

ম্যানেজার মুচকি হাসল,
ম্যানেজার মনে মনে ভাবছে,স্যারের মা বাবা কে খবরটা দিতে হবে তারা এতদিন স্যার এর ভবিষ্যত নিয়ে অনেক চিন্তা করেছেন স্যার তো কোন মেয়েকে পাত্তায় দেন নি কিন্তু এই মেয়ে তো স্যারকে একদম পাগল করে দিয়েছে।এবার তারা নিশ্চিন্ত হতে পাড়বে।

রাজঃ আপনি হুট করে কোন জগতে হারিয়ে যান বলবেন প্লিজ?

ম্যানেজারঃ না মানে স্যার কিছু না।আমি এপারমেন্ট কার্ড ইস্যু করে দিচ্ছি আপনি চাইলে ম্যামের ডেস্ক এখানে কোথাও সেট করে দিতে পাড়ি।

রাজঃযতটা বল্লাম শুধু ততটাই করুন( রাজ)

ম্যানেজারঃ জ্বি স্যার।

রাজঃ আসতে পাড়ুন এবার।

ম্যানেজার গিয়ে পিউকে কার্ড দিল।

পিউঃ কিসের কার্ড এটা?

ম্যানেজারঃ কাল থেকে আপনি স্যারের এসিস্ট্যান্ট।

পিউঃ বাহ বেশ ভাল।এত দেখছি মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি। আমার কাজ আপনি নিজেই অনেকটা এগিয়ে দিয়েছেন মিঃ রাজ চৌধুরী....

এবার দেখি এই খেলায় কে জিতে আপনি নাকি আমি...???

পরবর্তী পর্বের জন্য ক্লিক করুন :>> চলবে

Writer :- মোনা হোসাইন

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search