Romantic Bangla Valobashar Golpo Tomar Amar Prem Part 3

তোমার আমার প্রেম

Imtihan Imran [ Part – 03 ]

” আপনি একটা বোরিং লোক, সেটা জানেন?
” হঠাৎ এই কথা কেনো?
” পাশে একটা সুন্দরী মেয়ে বসে আছে। অথচ তার সাথে ফ্লাট না করে চুপচাপ বসে আছেন। অবশ্য ভাব নিচ্ছেন, সেটাও বলা যায়।

ফারিনের কথা শুনে সিজান হেসে দেয়। তা দেখে ফারিন ভ্রু কুঁচকে জিজ্ঞেস করে,

Bangla Valobashar Golpo

” আজব হাসছেন কেনো?
” না তেমন কিছু না। ফ্লাটও করতে চাই না। আর ভাব নিতেও চাই না।
” ঠিকি ভাব নিচ্ছেন, বোঝা যাচ্ছে।
” কি করলে মনে হবে, আমি ভাব নিচ্ছি না।
” উম…। আমার সাথে কথা চালিয়ে যেতে হবে। থামা যাবে না।
” দেখি কতোক্ষন বলা যায়।

” এবার আপনার সম্পর্কে বলুন,আপনার সম্পর্কে তো কিছুই জানি না।
” নাম তো শুনাই হগা। বাবা মায়ের একমাত্র ছেলে। বাবার নিজস্ব বিজনেস আছে। সেখানেই বসতে যাচ্ছি। আপনার সম্পর্কে বলুন।

” নাম তো শুনাই হগা।
” কপি করছেন।

শুনে দুজনেই হেসে দেয়।

” আমি বাবা মায়ের বড় মেয়ে। ছোট বোন দশম শ্রেণীতে পড়ে। আর আমি ভার্সিটি এডমিশন দিবো।

” বাহ ভালো!
” জি।

দুপুরের একটু পরেই তারা গ্রামের প্রান্তরে চলে আসে। হাটতে হাটতে তারা গ্রামের রাস্তার দুই পাশের সৌন্দর্য্য উপভোগ করছে। রাস্তার এক পাশে ধান ক্ষেত, অপরপাশে সরিষার ক্ষেত।

” বাহ! চমৎকার দৃশ্য। এক পাশে সবুজ ধান ক্ষেত তো আরেক পাশে হলুদের সমারোহে সরিষার ক্ষেত।
” সিজানের কাছে কেমন লাগলো রে, আমাদের গ্রাম?
” ফারিনের কমেন্ট টার সাথে আমিও একমত। চমৎকার দৃশ্য। এমন পরিবেশের সাথে খুব পরিচিত না আমি।

রাস্তার পাশ দিয়ে কয়েকজন মুরব্বি যাচ্ছিল। আয়ান তাদের দেখে সালাম দেয়।

” আরে আয়ান যে। ভালো আছো?
” জি চাচা আলহামদুলিল্লাহ। আপনি ভালো আছেন?
” আলহামদুলিল্লাহ ভালো। এরা কারা?
” এরা আমার বন্ধু। শহর থেকে এসেছে।
” তোমার বিয়ে উপলক্ষে?

Bangla Golpo

আয়ান মুচকি হেসে জবাব দেয়।

” জি চাচা।
” অনেক পথ জার্নি করে এসেছ। যাও বাসায় যাও।
” জি চাচা আসি।

রাস্তার মোড় এসে চার জনেই দাঁড়িয়ে পড়ে। কারন বামে একটা রাস্তা গেছে। ডানে আরেকটা রাস্তা গেছে। নীলারা যাবে বাম দিকে, কারন ওদের বাসা ওইদিকে। আর আয়ানদের বাসা পড়ে ডান দিকের রাস্তা দিয়ে গেলে।

পড়ুন  ভিলেন পর্ব 59 - থ্রিলার প্রেমের গল্প | Romantic Premer Golpo

” আচ্ছা নীলা, বাই তাহল।
” আচ্ছা বাই।
” পৌছিয়ে ফোন দিও।
” আচ্ছা।

সিজান ও ফারিন একে অপরের থেকে বিদায় নেয়।

” আচ্ছা বিয়ের দিন তাহলে দেখা হচ্ছে।
” হুম। বাই।

Bangla Romantic Love Story

সিজান,আয়ান কথা বলতে বলতে বাড়িতে চলে আসে। আয়ানকে দেখেই বাড়ির কর্তা গিন্নিরা দৌড়ে আসে। আয়ানদের পরিবারব সবাই একসাথেই থাকে। এই যৌথ পরিবারে আছে, আয়ানের দাদি, বাব-মা, চাচা_চাচী, চাচাত দুই বোন ও নিজের বড় ভাই_ভাবী, তাদের ছোট্ট ছেলে ও নিজের বোন।

সবাই এসে আয়ানকে ঘিরে ধরে। অনেকদিন পরে বাড়ির একমাত্র ছেলে বাড়িতে এসেছে কিনা? এইদিকে এই বড় পরিবারকে একসাথে দেখে সিজান কিছুটা অবাক হয়। এমন বড় পরিবার সে আগে কখনো দেখেনি। সিজান আশেপাশে তাকায়। বাড়িটা বিশাল,জমিদারের বাড়ির মতো বড় প্রাসাদ, প্রাসাদের সামনে দুই পাশে হরেক রুম ফুল ও ফলের বাগান।

আয়ানের সাথে থাকা ছেলেটার দিকে এবার সবার নজর পড়ে। বাড়ির বড় গিন্নি আয়ানের আম্মাজান নাফিসা বেগম সিজানের দিকে ইশারা দিয়ে, আয়ানকে জিজ্ঞেস করে ছেলেটা কে? সবার নজরও ততোক্ষনে সিজানের দিকে যায়। কিন্তু সিজানের সেদিকে হুশ নেই, তার চোখ আপাতত আশেপাশে তাকিয়ে আছে।

” ও আমার বন্ধু। শহরে থাকে। আমরা একই ক্লাসে পড়তাম।
” ওও আচ্ছা।

সিজানকে অন্যদিকে তাকিয়ে থাকতে দেখে আয়ান, সিজানকে খোঁচা দেয়।

” উহু..

সিজানের মুখে উহু ডাক শুনে বাড়ির মেয়েরা সব হেসে দেয়। ততোক্ষণে সিজানেরও খেয়াল হয়,সবাই তার দিকে তাকিয়ে আছে। সে তড়িৎগতিতে সবার সামনে থাকা নাফিসা বেগমকে সালাম দেয়।

” আসসালামু আলাইকুম। আপনি নিশ্চয় আমার আন্টি। (হেসে)
” আমি আয়ানের আম্মু।
” ঠিকি ধরেছিলাম। ভালো আছেন আন্টি?
” আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। তুমি কেমন আছে?
” আমিও ভালো আছি।

সিজান হঠাৎ নাফিসা বেগমের কাছে আসে। নাফিসা বেগম হকচকিয়ে যায়।

” আন্টি আমাকে কিন্তু আপনার ছেলের মতো আদর আপ্যায়ন করতে হবে।
” আচ্ছা করবো। (হেসে)
” ভাবী এখানে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে গল্প না করে, ওদেরকে ঘরে নিয়ে চলো। কতো দূর থেকে এসেছে।

Bangla Premer Golpo

আয়ানের ছোট চাচী বিলকিস বেগমের কথার সাথে নাফিসা বেগমও সায় দেয়। তিনি ওদেরকে ঘরে নিয়ে এলেন।

পড়ুন  কলেজের ক্রাশ যখন আমার প্রেমে পর্ব 4 | Emotional Love Story

” তোমরা ফ্রেশ হয়ে নেও। তোমাদের খাওয়ার ব্যবস্থা করি। আর আয়ান তোমার পাশের ঘরটা তোমার বন্ধুর জন্য।
” আচ্ছা।

আয়ান, সিজানকে নিয়ে সিড়ি বেয়ে উপরে চলে আসে। দুজনে প্রথমে আয়ানের বাবার রুমে যায়। উনাকে সালাম দিয়ে,কুশল বিনিময় করে, তারা নিজেদের রুমে চলে আসে।

আয়ান, সিজানকে ডাক দেয়।

” কীরে সিজান রুম থেকে বের হও। গোছল করবি না।
” আসছি রে।

সিজান রুম থেকে বের হয়ে জিজ্ঞেস করে,

” কোথায় যাবি গোছল করতে।
” পুকুরে।
” আমি কখনো পুকুরে গোছল করি নাই।
” এবার করতে হবে। টিউবওয়েল আছে ওখানে করলে করতে পারিস। তবে পুকুরে গোছল করার মজাই আলাদা। মজা পাবি চল।
” আচ্ছা চল।

Also Read Another Bangla valobashar golpo

দুই বন্ধু সিড়ি বেয়ে নিচে নামতেই আয়ানের বোন আইরিন এসে সামনে দাঁড়ায়।

” ভাইয়া গোছল করতে যাচ্ছিস?
” দেখতেই পাচ্ছিস।
” চল আমিও তোদের সাথে যাবো।
” তুই আমাদের সাথে যাবি কেন?
” তোদের কাপড় পাহারা দিতে হবে। অনেক দুষ্ট মেয়ে আছে, কাপড় নিয়ে যায়।

আইরিনের কথা শুনে সিজানের চোখ বড় বড় হয়ে যায়।

” সাংঘাতিক।

Click Here For Next Part – চলবে 

Writer- ইমতিহান ইমরান

Leave a Comment

Home
Stories
Status
Account
Search